চাকরি শুরু করার প্রথম ধাপ সাক্ষাৎকারে অংশগ্রহণ করা। | EjobsBD

সাক্ষাৎকারের সময় এই ১২টি বিষয় খেয়াল রাখুন

Posted on June 18, 2019 by  EjobsBD

চাকরি শুরু করার প্রথম ধাপ সাক্ষাৎকারে অংশগ্রহণ করা। শুরুর এই ধাপে আপনি যত ভালো করবেন, চাকরি পাওয়ার সম্ভাবনা আপনার ততই বেড়ে যাবে। তাই সব পরিস্থিতিতে ১২টি সাধারণ নিয়ম মেনে চলুন।

১. প্রথমেই প্রয়োজন আত্মবিশ্বাস। এটিই আপনাকে সফলতা অর্জনে অনেক এগিয়ে দেবে। নির্ধারিত দিনে নির্ধারিত অফিসে ঠিক সময়মতো উপস্থিত হওয়ার চেষ্টা করুন। রাস্তায় জ্যাম থাকবেই, তাই হাতে সময় নিয়ে একটু আগেই পৌঁছে যান।
 

২. যে প্রতিষ্ঠানে চাকরির আবেদন করেছেন, সে প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে প্রাথমিক ধারণা নিন।

৩. পোশাক হওয়া চাই মার্জিত। অফিশিয়াল পোশাক পরে সাক্ষাৎকার দিতে যান। পোশাক আপনার ব্যক্তিত্ব এবং কাজ করার ক্ষমতাকে কিছুটা হলেও প্রকাশ করে।

৪. আপনার মুঠোফোনটি সাক্ষাৎকার কক্ষে ঢোকার আগে সাইলেন্ট অথবা বন্ধ করে নিন। প্রশ্নের উত্তর যথাসম্ভব সহজ, সরল ও সংক্ষিপ্তভাবে দিন।

৫. কোনো প্রশ্নের উত্তর জানা না থাকলে সরাসরি বলুন যে উত্তরটি আপনি জানেন না। জানি জানি ভাব করে সময় নষ্ট করবেন না।

৬. সাক্ষাৎকারের সময় যেমন নার্ভাস হওয়া যাবে না, তেমনি ওভার স্মার্টনেস দেখানোও ঠিক হবে না। আপনাকে বাংলায় প্রশ্ন করা হলে ইংরেজিতে উত্তর দেওয়ার প্রয়োজন নেই। উপযুক্ত ভাষায় কথা বলুন।

৭. সাক্ষাৎকারের সময় আপনাকে পেশাগত ভাষায় কথা বলতে হবে। খেয়াল রাখবেন, আপনার অনুপযুক্ত শব্দ চয়ন যেন প্রশ্নকর্তাদের বিব্রত না করে। তাহলে তাৎক্ষণিকভাবেই আপনার সাক্ষাৎকার শেষ হয়ে যেতে পারে। সেই সঙ্গে আপনার স্বপ্ন।

৮. সাক্ষাৎকারের শুরু থেকেই প্রশ্নকর্তা আপনাকে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে বেশ কিছু তথ্য দিতে পারেন। যদি সেগুলো আপনি না শোনেন, তাহলে বড় কোনো সুযোগ হারাতে পারেন।

৯. প্রশ্নকর্তা যখন জিজ্ঞেস করেন, ‘আপনার কোনো প্রশ্ন আছে কিনা?’ তখন বেশির ভাগ প্রার্থী উত্তর দেন, ‘না’। এটি না করে আপনার মনে কোনো প্রশ্ন এলে পরিস্থিতি বুঝে তা করে ফেলুন। এর মাধ্যমে আপনি জানতে পারবেন, কোম্পানিটি আপনার জন্য সঠিক জায়গা হবে কি না।

১০.চাকরিটি আপনার খুব জরুরি হতে পারে। কিন্তু সাক্ষাৎকারের সময় ‘প্লিজ আমাকে চাকরিটা দিন’ ধরনের মরিয়া ভাব দেখাবেন না। এটা আপনার আত্মবিশ্বাসকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে।

১১. সাক্ষাৎকারের সময় ধীরস্থির ও দৃঢ়সংকল্প থাকুন। আপনি জানেন চাকরিটা পাওয়ার যোগ্যতা আপনার আছে, প্রশ্নকর্তাকেও সেটা বুঝতে দিন।

১২. কাজটা কি আপনি পারবেন? এ ধরনের প্রশ্ন করা হলে ‘আমি যথাসাধ্য চেষ্টা করব’ এ ধরনের জবাব দেওয়াই উত্তম। সাক্ষাৎ শেষে বাইরে আসার সময় উপযুক্ত সম্ভাষণ করে কক্ষ থেকে বেরিয়ে আসুন।